মৃ’ত্যুও আলাদা করতে পারেনি বাবা-মেয়েকে

পৃথিবীর সবচেয়ে নি’রাপদ আশ্রয়ের খোঁ’জ মেলে প্রশস্ত বৃক্ষের মতো ছায়াদানকারী বাবার বুকে। শত আবদার আর নির্মল শান্তির এ গন্তব্যটি কারোরই অজা’না নয়। আজ আমি আপনাদের তেমনি এক বাবা-সন্তানের গল্প বলবো।

স্নেহ-ভালোবাসায় সন্তানকে বুকে জড়িয়ে ধ’রে বাবা যাচ্ছিলেন আত্মীয়ের বাসায়। কে জানতো এই পথেই তাদের শেষ যাত্রা। দুর্ঘ’টনাটি ঘ’টেছে আজ মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৭টায়। ফুলপুর উপজে’লার ময়মনসিংহ-শেরপুর সড়কের বাঁশাটি এলাকায়। সেখানে একটি মাইক্রোবাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশে পুকুরে প’ড়ে যায়। ঘ’টনাস্থলেই একই পরিবারের আটজন মা’রা যায়।

আ’হত অব’স্থায় দুইজনকে উ’দ্ধার করা হয়। ওই ঘ’টনার পর একটি ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে। ছবিতে দেখা যাচ্ছে, একজন বাবা তার মেয়েকে বুকে জড়িয়ে ধ’রে আছেন। তবে তাদের ততক্ষণে প্রা’ণ চলে গেছে। দুর্ঘ’টনাস্থল থেকে ওই অব’স্থায়ই তাদের ম’রদে’হ উ’দ্ধার করা হয়েছে।

সাকিব হাসান সুইম নামে একজন ছবিটি ফেসবুকে পোস্ট করে লি’খেছেন, ‘বাবা তার শেষ নিঃশ্বা’স পর্যন্ত সন্তানকে বাঁ’চানোর চেষ্টা করে গেছেন। মৃ’ত্যুর পরও সন্তানকে বুক থেকে আ’লাদা করেননি। অথচ সন্তান মা-বাবাকে দূ’রে ঠেলে দেয়। ময়মনসিংহের ফুলপুরে মাইক্রোবাস উল্টে খাদে প’ড়ে একই পরিবারের আট জনের মৃ’ত্যু।

আল্লাহ সবাইকে জান্নাত দান করুন। আমিন।’ ফুলপুর থা’নার ভারপ্রাপ্ত ক’র্মকর্তা (ওসি) ইমা’রত হোসেন গাজী জা’নান, ময়মনসিংহ থেকে শেরপুরগামী মাইক্রোবাসটি ফুলপুরে পৌঁছালে চালক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফে’লে ন। পরে মাইক্রোবাসটি পুকুরে প’ড়ে যায়। খবর পেয়ে পু’লিশ ও ফায়ার সার্ভিসের ক’র্মী রা ঘ’টনাস্থলে গিয়ে আট জনের ম’রদে’হ উ’দ্ধার করেন। নি’হতদের মধ্যে এক শি’শু, ৫ নারী ও ২ পুরুষ রয়েছেন। এছাড়া জীবিত উ’দ্ধার করা হয় দু’জনকে। মাইক্রোবাসে মোট ১৪ জন যাত্রী ছিলেন।