বউকে তালা’ক দিয়ে শাশুড়িকে বিয়ে করে সংসার পা’তলেন জামাই

মাত্র ১১দিন আগে অনে’কটা ঘটা করেই বি’য়ে হয়েছিল নূরুন্না’হার খাতুনের (১৯)। বিয়ের সকল রী’তিনীতি পা’লন করে শ্বশুরবাড়িতে এক সপ্তা’হ অবস্থা’নের পর স্বা’মীকে নিয়ে বাবার বাড়ি ফি’রে আসে শুক্র’বার ।

আর শনিবা’র বিকা’লেই ঘর ভাঙে নূ’রুন্না’হারের। ৩২ বছর বয়সী বর মো’নছের আ’লী শ্ব’শুর বাড়ি এসে নবব’ধূ নূ’রুন্নাহার’কে তা’লাক দিয়ে শাশুড়ি মাজে’দা বেগমকে (৪০) বিয়ে করে চলে যান নিজ বাড়ি’।শাশু’ড়ি মা’জেদা এখন মোনছের আ’লীর ঘর’ণী হ’য়ে দিব্যি সংসা’র ক’রছেন। চা’ঞ্চল্য’কর এ ঘ’টনাটি ঘ’টেছে টাঙ্গা’ইলের গো’পালপু’র উপ’জে’লার ক’ড়িয়াটা’আটা গ্রামে।

জা’না যায়, ধনবাড়ী উ’পজে’লার হাজরা’বাড়ী পূর্বপা’ড়া গ্রামের ওয়াহেদ আলীর ছে’লে মোনছের আলী গো’পালপু’র উপজে’লার কড়িয়া’টা গ্রামের নূর ইসলা’মের কন্যা নূরুন্না’হার ‘খাতুনকে বিয়ে করেন। বিয়ের পরদি’ন শ্বা’শুড়ি মা’জেদা বেগম মে’য়ের বাড়ি বেড়াতে যান। মে’য়ে’র স’ঙ্গে এক সপ্তা’হ সেখানে অব’স্থানের পর,

গত শুক্রবার মে’য়ে-জা’মাই’সহ নিজ বা’ড়ি ফে’রেন। শনিবার সকা’লে নব’বিবাহিত নূরু’ন্নাহার মোন’ছে’রের স’ঙ্গে সং’সার ক’রবেন না বলে বা’য়না ধ’রেন। শুরু হয় পা’রিবা’রিক ক’লহ। শাশুড়ি মা’জেদা বেগম তখন সবার সামনে বলেন, নূরুন্নাহা’র সং’সার না কর’লে তিনি নতুন জামা’তার সংসা’র করবেন।

মাজেদা বে’গমের এমন বক্তব্যে অ’সহায় শ্বশু’র নূর ইস’লাম গ্রা’ম্য সা’শ ডাকে’ন। হা’দিরা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুল কাদের তালুকদার, ইউপি সদস্য নজরুল ইস’লা’মসহ এলা’কার গ’ণ্যমাণ্য ব্য’ক্তিরা সালিশে বসেন। সা’মাজিক বিচা’রে মা’জেদা বেগম ও মো’নছের আ’লীকে মা’রধ’র করা হয়। এরপর পরি’বারে’র সম্ম’তিতে নূর ইস’লাম প্রথ’মে স্ত্রী’ মা’জে’দা বেগম’কে তা’লা’ক দেন।

এরপর বর মোনছের আলী নবপ’রিণীতা নূরুন্নাহারকে তালাক দেন।এরপর একই অনুষ্ঠানের সবার উ’পস্থিতিতে মোনছের আ’লীর স’ঙ্গে মা’জেদা বেগমে’র এক লাখ টাকা দেন’মো’হরে বি’য়ে হয়। হাদিরা ইউনি’য়নের নি’কাহ রেজি’স্ট্রার কা’জী জিনা’ত বিয়ে রেজি’স্ট্রি করে’ন। তিনি জা’নান, ই’উপি চেয়া’রম্যান মেম্বার, গ্রা’ম্য মা’তব্বর এবং ওই পরিবারের,

সকল স’দস্যে’র স’ম্মতিতে দু’টি তা’লা’ক এবং একটি বিবা’হের কাজ একই অনু’ষ্ঠানে সম্পা’দন করা হয়। ইউপি মেম্বার নজ’রুল ইস’লাম জা’নান, পুরো কা’জটি হয়েছে ওই পরি’বারের সম্মতিতে। তবে শাশুড়ি বিয়ে করার ঘ’টনা’য় আ’প’ত্তি থাকায় গ্রামবা’সীদে’র উপ’স্থি’তিতে মোনছের ও মাজে’দাকে শা’রী”রিক শা’স্তি দেয়া হয়।

ইউপি চেয়া’রম্যান আব’দুল কাদের তা’লুকদার জা’নান, শাশু’ড়ি বিয়ের খবরে ক্ষু’ব্ধ গ্রামবাসী বাড়ি ঘেরাও করে মা’র’পি’ট শুরু করেন। খবর পেয়ে তিনি ঘট’নাস্থ’লে যান। পরি’বারের সক’লের সম্মতি’র বিষয়’টি নি’শ্চিত হয়ে তিনি বিয়ের স’ম্মতি দেন।এদিকে শ্বা’শু’ড়ি’কে বি’য়ের খব’রে দু’দিন ধ’রে বহু’মা’নুষ ভি’ড় করছে মোন’ছের আলীর বাড়িতে।